রাত ০৫:২৭ ; শনিবার ;  ১৯ অক্টোবর, ২০১৯  

সাম্য হত্যা: গোবিন্দগঞ্জ থানার ওসি ক্লোজ

প্রকাশিত:

গাইবান্ধা প্রতিনিধি।।

গাইবান্ধার পৌর মেয়রের ছেলে স্কুলছাত্র আশিকুর রহমান সাম্য হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে গোবিন্দগঞ্জ থানার ওসি এবিএম জাহিদুল ইসলামকে গাইবান্ধা পুলিশ লাইনে ক্লোজ করা হয়েছে। শনিবার সন্ধ্যায় তার বিরুদ্ধে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

এর আগে নিখোঁজ হওয়ার ১৬ ঘণ্টা পর ঈদের দিন শুক্রবার সকালে স্কুলছাত্র আশিকুর রহমান সাম্য (১৬) এর হাত-পা বাঁধা বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় মূল পরিকল্পনাকারী পৌর কাউন্সিলর জয়নাল আবেদিনসহ সব আসামিদের গ্রেফতার ও গোবিন্দগঞ্জ থানার ওসিকে অপসারণের দাবিতে শনিবার দুপুরে ঢাকা-রংপুর মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করে এলাকাবাসী। তার ৪/৫ ঘণ্টার মধ্যেই ওসি এবিএম জাহিদুল ইসলামকে সন্ধ্যায় গাইবান্ধা পুলিশ লাইনে ক্লোজ করা হয়। 

গাইবান্ধার পুলিশ সুপার আশরাফুল ইসলাম জানান, দায়িত্ব পালনে অবহেলার কারণেই তাকে গাইবান্ধা পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, সাম্যেকে তার সহপাঠী শাহরিয়ার খান হৃদয় বৃহস্পতিবার দুপুর ২টার দিকে তার বাড়ি গোবিন্দগঞ্জ শহরের ঘোষ পাড়া থেকে ডেকে নিয়ে যায়। এরপর থেকে সে নিখোঁজ ছিল। পরে বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করেও তার কোনও সন্ধান পাওয়া যায়নি। এ ঘটনায় সাম্যের বাবা আতাউর রহমান ওইদিন সন্ধ্যায় গোবিন্দগঞ্জ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। পুলিশ রাতেই জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৮ জনকে আটক করে। জিজ্ঞাসাবাদে পাওয়া তথ্য থেকে শুক্রবার সকাল ৬টার দিকে গোবিন্দগঞ্জ পৌরসভার সামনে একটি কমিউনিটি সেন্টারের পেছনের সেপটিক ট্যাংকি থেকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় সাম্যর লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় শনিবার পৌর কাউন্সিলর জয়নাল আবেদিনসহ ১১ জনকে আসামি করে মেয়র আতাউর রহমান সরকার বাদি হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

/এসএম/এএইচ/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।