সকাল ১০:৪১ ; শুক্রবার ;  ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮  

শীতলক্ষ্যা তীরে কোরবানির পশুর হাটে হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা

প্রকাশিত:

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি।।

নারায়ণগঞ্জে শীতলক্ষ্যা নদীর তীরে কোরবানির পশুর হাট বসানোর বিষয়ে হাইকোর্ট নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। মঙ্গলবার দুপুরে হাইকোর্টের বিচারপতি নাঈমা হায়দার চৌধুরী ও বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলামের যৌথ বেঞ্চ এই নিষেধাজ্ঞার আদেশ দেন।

সুপ্রীম কোর্টের আইনজীবী একরামুল হকের ল ইয়ার্স সার্টিফিকেটে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এতে জানানো হয়, হাটের ব্যাপারে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) নারায়ণগঞ্জ নদী বন্দরের যুগ্ম পরিচালক একেএম আরিফউদ্দিনের করা একটি রিট পিটিশনের প্রেক্ষিতে এই নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়।  

জানা যায়, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের আওতাধীন ১৬টি অস্থায়ী পশুর হাটের ইজারার দরপত্রের মধ্যে সিদ্ধিরগঞ্জে আটি মনোয়ারা জুট মিলস প্রাইভেট লিমিটেড এর পূর্ব পাশের খালি মাঠের হাট রয়েছে।

বিআইডব্লিউটিএ নারায়ণগঞ্জ নদী বন্দরের যুগ্ম পরিচালক একেএম আরিফউদ্দিন জানান, এ হাটটি শীতলক্ষ্যা নদীর তীরে ওয়াকওয়ের পাশে সীমানা পিলারের ভেতরে। ওই এলাকায় অবৈধ বালু ও পাথরের ব্যবসা বন্ধ করতে ইতোমধ্যে নদীর তীরে অসংখ্য গাছ লাগানো হয়েছে। এর আগে নদীর তীর নিয়ে সরকারের কোনও পরিকল্পনা ছিল না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নদীর তীর নিয়ে বৃহৎ পরিকল্পনা থেকে নদীকে দূষণমুক্ত রাখতে ওয়াকওয়ে ও বনায়ন প্রকল্প করা হয়েছে। নির্মাণ করা হবে ইকোপার্ক। এ জায়গায় পশুর হাটের কোনও যৌক্তিকতা নেই। হাটটি বন্ধ করতে সিটি করপোরেশনের কাছে লিখিত আবেদন করলেও ইজারা বাতিল না করায় মঙ্গলবার হাইকোর্টে রিট পিটিশনটি দাখিল করা হয়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মনোয়ারা জুট মিলস এর পাশে হাটের জন্য ৭টি দরপত্র জমা পড়লেও সর্বোচ্চ ছিল ওমর ফারুক রানার ১০ লাখ ১০ হাজার টাকার দরপত্র। হাট ইজারা না পেয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মজিবুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক হাজী ইয়াসিন, জাতীয় শ্রমিক লীগের সাবেক সভাপতি আব্দুল মতিন মাস্টার, ৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আরিফুল হক হাসানসহ ক্ষমতাসীনদের একটি অংশ ইজারা বাতিলের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করে। রবিবার এর প্রতিবাদে জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও নাসিক মেয়র আইভির কাছে স্মারক লিপিও পেশ করেন।

/এমডিপি/এএইচ /

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।