রাত ১১:৩৭ ; শুক্রবার ;  ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮  

পেস মেকার প্রোগ্রামার ফিরিয়ে দেওয়ার আহ্বান

প্রকাশিত:

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট।।

গত বুধবার ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন লেখক, কলামিস্ট ও ডাক্তার পিনাকি ভট্টাচার্য। তাতে তিনি একটি জনগুরুত্বপূর্ণ যন্ত্রের ছিনতাই হয়ে যাওয়ার কথা উল্লেখ করেন। যন্ত্রটি বাজারে কিনতে পাওয়া যায় না, তাই তার মতে হৃদরোগীদের চিকিৎসায় ব্যবহৃত গুরুত্বপূর্ণ যন্ত্রটির কোনও বাজারমূল্য নেই। কেয়ারলিংক প্রোগ্রামার নামের যন্ত্রটি ফিরে পেতে ছিনতাইকারী কিংবা কেউ খুঁজে পেলে তার উদ্দেশে দেওয়া ডা. পিনাকির স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে ধরা হলো-  

‘এই যন্ত্রটার নাম কেয়ারলিঙ্ক প্রোগ্রামার। একটা নির্দিষ্ট কোম্পানির পেস মেকার হৃদপিণ্ডে প্রতিস্থাপন করার পর এটা দিয়ে প্রোগ্রাম করে দিতে হয়। এ ছাড়াও এটা দিয়ে নির্দিষ্ট সময় অন্তর অন্তর পেস মেকারের অবস্থা, রোগীর অবস্থা এসব চেক করা হয়। এটা চালাতে হলে বিশেষ দক্ষতা ও ট্রেইনিং নিতে হয়। এই ছাড়া এটা দিয়ে আর কিছু হয় না। এটার ওজন প্রায় সাড়ে বারো কেজি।

এতো গৌরচন্দ্রিকা করার কারণ হচ্ছে, আমাদের প্রতিষ্ঠানের এক সহকর্মীর হাতে থেকে চট্টগ্রাম শহরে এই রকম একটা প্রোগ্রামার ছিনতাই হয়েছে। প্রোগ্রামারটা একটা প্যাকেটের মধ্যে ছিল, তাই ছিনতাইকারী কী নিচ্ছে সেটা বুঝতে পারেনি।

আমার ধারণা ছিনতাইকারী প্রথমে এটা কম্পিউটার এক্সেসরিজের দোকানে বিক্রি করার চেষ্টা চালাবে। তারপরে ব্যর্থ হয়ে ভাঙ্গারির দোকানে বিক্রি করে কটকটি খেতে চাইবে। সেখানেও ব্যর্থ হয়ে ডাস্টবিনে ফেলে দেবে। কারণ এটা বিক্রয়যোগ্য কোনও পণ্য নয়, আমরাও এটা পয়সা দিয়ে কিনিনি।

যদি এই ধরনের কোনও যন্ত্র কারও নজরে আসে প্লিজ আমাকে জানাবেন, অথবা নিকটস্থ থানায় জমা দিয়ে আমাকে জানাবেন। ছিনতাইয়ের ঘটনা নিকটস্থ থানায় জিডি করা আছে।

শুধু আমাদের কাজের সমস্যা হচ্ছে সেজন্য নয়; চট্টগ্রামের বুকে পেস মেকার নিয়ে ঘুরে বেড়ানো রোগীদের জন্য এটা অতিজরুরি একটা যন্ত্র। আমেরিকা থেকে আরেকটা প্রোগ্রামার আসতে সময় লাগবে। আর আমেরিকান কোম্পানি অতিরিক্ত প্রোগ্রামার কাউকেই দেয় না, আমাদেরকেও দেওয়ার কারণ নাই। ইতিমধ্যেই এই ঘটনা ওদের জানতে গিয়ে লজ্জায় কানকাটা গেছে।

যন্ত্রটি ফেরত পেলে আমাদের পক্ষ থেকে সকল অভিযোগ প্রত্যাহার করে নেওয়া হবে; ছিনতাইকারীর বিরুদ্ধে কোনও প্রতিশোধমূলক পদক্ষেপ নেওয়ার ইচ্ছাও আমাদের নেই।’

 

ডা. পিনাকির ফেসবুক লিংক

 

/এফএ/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।