রাত ১০:২৮ ; শুক্রবার ;  ১৮ অক্টোবর, ২০১৯  

রংপুরে অটো চালকদের একাংশের ধর্মঘটে নগরবাসীর দুর্ভোগ

প্রকাশিত:

রংপুর সংবাদদাতা

মহাসড়কে অটো রিকশা চলাচল করতে না দেওয়ার প্রতিবাদে রংপুরে গতকাল সোমবার ধর্মঘট পালন করেছে অটো চালকদের একাংশ। গত রবিবার নগরীতে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা জাতীয় শ্রমিক পার্টির ব্যানারে এ ধর্মঘটের আহবান করা হয়।

সকাল থেকে সিটি করপোরেশন এলাকায় অধিকাংশ জায়গায় এ ধর্মঘটের ফলে যাত্রী দুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করে। এদিকে জেলা ব্যাটারিচালিত অটো রিকশা মালিক শ্রমিক সমবায় সমিতির নেতৃবৃন্দ মহাসড়কে অটো রিকশা চলাচল করতে না দেওয়ার প্রতিবাদে ধর্মঘটকে সমর্থন না করলেও আলাদা ভাবে প্রশাসনের কাছে বিভিন্ন দাবি পেশ করেছেন।

জানা গেছে, সরকারি ঘোষণা অনুযায়ী গত ১ আগস্ট হতে মহাসড়কে অটো রিকশা, থ্রি-হুইলার (তিনচাকা বিশিষ্ট যানবাহন) বন্ধ করে দেয় প্রশাসন। এর প্রতিবাদ করে বিকল্প রাস্তার দাবিতে সকাল থেকে নগরীর সিও বাজার এলাকায় জমায়েত হতে থাকে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশার চালক ও শ্রমিকেরা। এ সময় অটো রিকশা শূন্য হয়ে পড়ে অধিকাংশ রাস্তা। ফলে ভোগান্তিতে পড়েন বিভিন্ন কাজে বের হওয়া মানুষেরা।

এদিকে জেলা অটো রিকশা মালিক শ্রমিক সমবায় সমিতি ধর্মঘটকে সমর্থন না করলেও তারা দাবি করেন যেহেতু সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষ অটো রিকশা চলাচলের জন্য টাকার বিনিময়ে লাইসেন্স প্রদান করেছেন তাই সিটি কর্পোরশেন এলাকার মহাসড়কে লাইসেন্সকৃত অটো রিকশা চলাচলে কোন বাধা প্রদান না করার যাবে না।

একাধিক সাধারণ অটোচালক অভিযোগ করেন, অনেক বেকার যুবক ঋণ নিয়ে অটো কিনে কোনও ভাবে জীবিকা নির্বাহ করে আসছিল। এখন তাদের পথে বসতে হবে।

জেলা ব্যাটারিচালিত অটো রিকশা মালিক শ্রমিক সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার কবীর সুমন বলেন, মূলত তোফাজ্জল হোসেন তোফা নামে এক ব্যক্তি যিনি অটো রিকশা শ্রমিকও নন আবার মালিকও নন তিনি ধর্মঘট সহ অনাকাঙ্ক্ষিত কর্মসূচি দিয়ে অটো চালক এবং মালিকদের ন্যায্য দাবিকে নস্যাৎ করার অপচেষ্টা করছেন। তিনি জানান, প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনা করে কোন কোন রাস্তায় তারা চলাচল করতে পারবেন তা ঠিক করে নেবেন।

/টিএন/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।