রাত ১০:৩৮ ; রবিবার ;  ১৮ নভেম্বর, ২০১৮  

বেঙ্গল লাইটস পরিচিতি

2

প্রকাশিত:

সম্পাদিত:

ফজলুল হক ||

বাংলাদেশে বসে বিশ্বের সমকালীন সাহিত্যের খোঁজ পেতে কখনো এক দুই দশক লেগে যায়। ইংরেজি হলে তো এক প্রকার— মূল লেখা যদি জার্মান বা রুশ হয় তবে তা ইংরেজি হয়ে বাংলা হতে হতে সেই কালের পাঠকের মৃত্যুও অবধারিত হতে পারে। 
দেশে বিশ্বের সমকালীন সাহিত্য নিয়ে তেমন পত্রিকা নেই। দৈনিক পত্রিকার সাহিত্য পাতা বা লিটলম্যাগে সাক্ষাৎ পাওয়া গেলেও তা পর্যাপ্ত নয়।
বেঙ্গল লাইটস  সময়ের এই প্রয়োজনটুকু মেটাতে বছরে দুটো সংখ্যা প্রকাশ করে। একটি বসন্তে অন্যটি গ্রীষ্মে। এবারের গ্রীষ্ম সংখ্যাটি প্রকাশিত হয়েছে বাংলাদেশের নবীন-প্রবীণ লেখক-সহ প্রায় সবকটি মহাদেশের লেখকদের লেখা নিয়ে। যেহেতু পত্রিকাটি বিশ্বপাঠকের তাই এর ভাষাও ইংরেজি। এই পত্রিকাটির মাধ্যমে বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ লেখা ইংরেজিতে অনূদিত হওয়ায় বাংলাদেশের লেখকরা বর্হিবিশ্বে পঠিত হচ্ছেন।
এ সংখ্যার সূচীপত্রে রয়েছেন— কে আনিস আহমেদ, জেন ম্যাক অ্যাডামস্, মহেশ রাও, শাহীন আখতার, আবীর হক, কাবেরী রায় চৌধুরী, আহমেদ হোসাইন, দীনা বেগম, সৈয়দ শামসুল হক, নাদিম জামান, আহসান আকবর, খাদেমুল ইসলাম, জেমস মার্টিন, টমাস, ন্যান্সি লুইস কুক, কো কো থেট, জন ড্রিউ, ডেভিড সুক, এয়াইন্দ্রা আঁদ্রে নাফিস-সাহেলি, মাউং ডে প্রমুখ।
এই সংখ্যায় গল্প প্রবন্ধ অনুবাদ কবিতা ইত্যাদি ছাপা হয়েছে। 
২০১২ সাল থেকে বেঙ্গল লাইটস  প্রকাশিত হচ্ছে। এ পর্যন্ত ৬টি সংখ্যা প্রকাশিত হয়েছে।
পত্রিকাটি সম্পাদনা করেন খাদেমুল ইসলাম। 
প্রতিটি সংখ্যায়ই বাংলাদেশের একজন নবীন অথবা প্রবীণ চিত্রশিল্পীর শিল্পকর্ম প্রকাশ করা হয়। এই সংখ্যায় ছাপা হয়েছে কনকচাঁপা চাকমার শিল্পকর্ম।
পত্রিকাটি প্রকাশ করছে ইউনিভার্সিটি অফ লিবারেল আর্টস বাংলাদেশ। মূল্য ৩০০ টাকা।     

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।