রাত ১০:২৪ ; সোমবার ;  ১৮ নভেম্বর, ২০১৯  

সন্ধ্যায় সৈয়দ হাসান ইমাম এর বর্ণাঢ্য জন্মোৎসব

প্রকাশিত:

সম্পাদিত:

বিনোদন প্রতিবেদক।।

সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব সৈয়দ হাসান ইমাম। মুক্তিযুদ্ধ পূর্ব সময় থেকেই সকল প্রগতিশীল অন্দোলনের এ পুরোধা একইসঙ্গে পরিচালক-প্রযোজক-অভিনেতা হিসেবে দীর্ঘদিন ধরে অবদান রেখে চলেছেন। সোমবার (আজ) তার ৮০ তম জন্মবার্ষিকী।

এ উপলক্ষ্যে আজ বর্ণাঢ্য আয়োজনের প্রস্তুতি নিয়েছে ‘শিল্পী সৈয়দ হাসান ইমাম-এর ‘৮০তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন পর্ষদ’। সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় কেন্দ্রীয় গণগ্রন্থাগারের শওকত ওসমান মিলনায়তনে আয়োজিত হবে জন্মবার্ষিকীর এই উদযাপন অনুষ্ঠান।

জন্মবার্ষিকী উদযাপন পরিষদের সদস্য সচিব ও সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুস জানান, বর্ণাঢ্য এ অনুষ্ঠানটিকে সফল করতে দুই শতাধিক বিশিষ্ট নাগরিকের সমন্বয়ে গঠিত জাতীয় উদযাপন পর্ষদ নিরলসভাবে কাজ করেছেন। উদযাপন পর্ষদের আহবায়ক করা হয়েছে সাংস্কৃতিক ব্যাক্তিত্ব ও বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর সভাপতি কামাল লোহানীকে।

তিনি আরও জানান, আজকের এই বর্ণাঢ্য জন্মোৎসবে সৈয়দ হাসান ইমামের প্রতি শ্রদ্ধার্ঘ্য ও শুভেচ্ছা জানানো হবে। তাকে উদ্দেশ্য করে নিবেদিত মানপত্রটি রচনা করেছেন সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হক। এই অনুষ্ঠানে সৈয়দ হাসান ইমামের উপর রচিত ‘নীল ছোঁয়া কিংবদন্তী’ শিরোনামে একটি সম্মাননা গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করা হবে। এছাড়াও বরেণ্য এই শিল্পীর জীবন ও কর্মের নানামুখি ‍দিক নিয়ে প্রদর্শিত হবে একটি তথ্যচিত্র। অনুষ্ঠানে সৈয়দ হাসান ইমামের সহধর্মিণী নৃত্যশিল্পী-অভিনেত্রী লায়লা হাসান ও কন্যা সংগীতা ইমাম উপস্থিত থেকে তাকে নিয়ে কিছু বলবেন।

৮০তম জন্মদিনের অনুভূতি প্রকাশে সৈয়দ হাসান ইমাম বলেন, ‘আল্লাহর রহমতে জীবনের ৮০টি বছর সুস্থ শরীর নিয়ে কাটাতে পেরেছি। এটাই জীবনের বড় প্রশান্তি। যতদিন বাঁচবো যেন সুস্থভাবে বেঁচে থাকি এ দোয়া চাই। আমি কৃতজ্ঞ যারা আজকের দিনটি বিশেষায়িত করার জন্য অনেক শ্রম দিচ্ছেন, কষ্ট করছেন।’

সৈয়দ হাসান ইমামের জন্ম ১৯৩৫ সালের এই দিনে (২৭ জুলাই) বর্ধমানে মামার বাড়িতে। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে স্বাধীন বাংলা বেতারকেন্দ্র থেকে শুরু করে পরবর্তী সময়ে নাটক-চলচ্চিত্র পরিচালনা, প্রযোজনা, অভিনয় ও বিভিন্ন সাংস্কৃতিক আন্দোলনে তিনি অসামান্য অবদান রেখেছেন। তিনি ১৯৭২ সালে প্রথম চলচ্চিত্র নির্মাণ করেন ‘লালন ফকির’। এরপর ‘লাল সবুজের পালা’ ও ‘অবিচার’ নামে আরও দুটি চলচ্চিত্র নির্মাণ করেন। চলচ্চিত্র অভিনয়ে হাসান ইমামকে প্রথম দেখা যায় ১৯৬১ সালে সালাহউদ্দিন পরিচালিত ‘ধারাপাত’-এ। এরপর তিনি ‘রাজা এলো শহরে’, ‘শীত বিকেল’, ‘অনেক দিনের চেনা’, ‘কাগজের নৌকা’, ‘আনারকলি’, ‘ঘুড্ডি’, ‘সারেং বউ’, ‘ডুমুরের ফুল’ ‘জানাজানি’, ‘উজালা’, ‘পরওয়ানা’সহ অসংখ্য চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। সৈয়দ হাসান ইমাম চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক এবং পরিচালক সমিতির সভাপতি হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন।

/এস/এমএম/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।