রাত ১১:১০ ; শুক্রবার ;  ১৮ অক্টোবর, ২০১৯  

গাইবান্ধায় দুর্বৃত্তের গুলিতে আহত জেএমবি সদস্যের মৃত্যু

প্রকাশিত:

বগুড়া প্রতিনিধি॥

গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলার বসন্তেরপাড়া গ্রামে নিজ বাড়ির কাছে রবিবার রাতে মাথায় দুর্বৃত্তদের গুলিতে গুরুতর আহত জেএমবি সদস্য ফজলে রাব্বী(৩২) মারা গেছেন। রবিবার গভীর রাতে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে মারা যান তিনি।

পুলিশ দাবি করছে, পূর্ব বিরোধের জের ধরে জেএমবির কর্মীরা বাকবিতণ্ডার এক পর্যায়ে খুব কাছ থেকে তার মাথায় গুলি করে।

সাঘাটা থানার ওসি রফিকুল ইসলাম ও এলাকাবাসীরা জানান, সাঘাটা উপজেলার জুমারবাড়ি ইউনিয়নের বসন্তেরপাড়া গ্রামের ফজলে রাব্বী জেএমবির সক্রিয় সদস্য ছিলেন। তিনি বাংলা ভাইয়ের অনুসারি ছিলেন। তবে ২০০৬ সালের পর থেকে তিনি আত্মগোপনে ছিলেন।

ঈদে বাড়িতে আসেন ফজলে রাব্বী। রবিবার রাতে তিনি স্থানীয় জুমারবাড়ি হাট থেকে হেঁটে বাড়িতে ফিরছিলেন। রাত ৯টার দিকে বাড়ির কাছে ওয়াপদা বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের উপর পৌঁছলে দুটি মোটরবাইকে আসা দুর্বৃত্তরা তার মাথায় গুলি করে পালিয়ে যায়।

রাত সাড়ে ১০টার দিকে ফজলে রাব্বীকে রক্তাক্ত অবস্থায় বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে রাত দেড়টার দিকে তিনি মারা যান।

ওসি আরও জানান, বাংলা ভাইয়ের অনুসারি ফজলে রাব্বীর সাথে জেএমবির অপর একটি গ্রুপের বিরোধ ছিল। তার ধারণা, এ বিরোধের জেরে রবিবার রাতে বাকবিতণ্ডার এক পর্যায়ে তারা খুব কাছ থেকে মাথায় একটি গুলি করে। নিহতের বিরুদ্ধে থানায় কোনও মামলা ছিলনা।

সোমবার সকালে বগুড়া শজিমেক হাসপাতাল মর্গের সামনে নিহতের চাচা আবদুর রব সাংবাদিকদের কাছে দাবি করেন, ফজলে রাব্বী এক সময় জেএমবি করলেও দীর্ঘদিন নিষ্ক্রিয় আছেন। পূর্ব শত্রুতার জের ধরে একই গ্রামের কয়েকজন দুর্বৃত্ত তার ভাতিজাকে হত্যা করেছে। এ ঘটনায় এখনও কোনও মামলা হয়নি। পুলিশ কাউকে গ্রেফতারও করেনি।

/এমআর/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।