রাত ০৩:৫৬ ; বৃহস্পতিবার ;  ১৭ অক্টোবর, ২০১৯  

বাংলাদেশিদের গড় আয়ু বেড়েছে ৩ বছর

প্রকাশিত:

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট॥

বাংলাদেশিদের গড় আয়ু প্রায় তিন বছর বেড়েছে। এখন পুরুষের গড় আয়ু ৭০ দশমিক ৪ বছর। ২০০৯ সালে যা ছিল ৬৭ দশমিক ২ বছর। আর নারীদের গড় আয়ু এখন ৭১ দশমিক ২ বছরে যা ২০০৯ সালে ছিল ৬৮ দশমিক ৭ বছর।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) সর্বশেষ ২০১৩ সালের মনিটরিং দ্য সিচুয়েশন অব ভাইটাল স্ট্যাটিসটিকসের ফলাফলে এ চিত্র পাওয়া গেছে। ২০০৯ সালের চেয়ে ২০১৩ সালে গড় আয়ু বৃদ্ধির এই পরিসংখ্যান দেখানো হয়েছে।

প্রতিবছর বিবিএস এই পরিসংখ্যান প্রকাশ করে থাকে। এর মাধ্যমে একজন মানুষের জীবনের জন্ম, মৃত্যু, আয়ুষ্কাল, বিয়ের মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের চিত্র উঠে আসে।

জানা যায়, ১৯৮০ সালে বাংলাদেশিদের প্রত্যাশিত গড় আয়ু ছিল ৪৮ বছর। ১৯৯০ সালে তা ৬০ বছর, ২০০০ সালে ৬৫ ও ২০১০ সালে ৬৭ দশমিক ৭ বছরে পৌঁছায়।

আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্রের (আইসিডিডিআরবি) গবেষক ড. মো: মনিরুল ইসলাম বলেন, 'স্বাস্থ্যসেবার সুযোগ বৃদ্ধি, টিকাদান কর্মসূচির উন্নয়ন, পুষ্টি ও সার্বিক অর্থনৈতিক অবস্থার উন্নয়নের কারণেই মূলত প্রত্যাশিত আয়ুষ্কাল বেড়েছে।'

তবে জরিপে জানানো হয়, দেশের জনসংখ্যা বৃদ্ধির বার্ষিক হার আবার বেড়েছে। আগে প্রতিবছরে যে হারে জনসংখ্যা বাড়ত, এখন তার চেয়ে বেশি হারে বাড়ছে। ২০১৩ সালে ১ দশমিক ৩৭ শতাংশ হারে জনসংখ্যা বেড়েছে। এর আগে এ হার ছিল ১ দশমিক ৩৬ শতাংশ। তবে জনসংখ্যা বৃদ্ধির বার্ষিক হার বাড়লেও মোট প্রজনন হার কমেছে বলেও জানানো হয়েছে।

শিশুমৃত্যুর হারও কমেছে। ২০০৯ সালে বছরে প্রতি হাজার শিশুতে গড়ে ৩৯টি শিশু মারা যেতো। ২০১৩ সালে এই সংখ্যা ৩১ এ নেমে এসেছে। মাতৃমৃত্যুর হার ২০০৯ সালে যেখানে ছিল ২ দশমিক ৫৯, তা ২০১৩ সালে ১ দশমিক ৯৭ এ নেমে এসেছে।

গতকাল মঙ্গলবার আগারগাঁওয়ের পরিসংখ্যান ভবনে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে এ জরিপের ফলাফল প্রতিবেদনের মোড়ক উন্মোচন করা হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব কানিজ ফাতেমা।

/এফএস/


 

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।