রাত ০৫:৩৪ ; শনিবার ;  ১৯ অক্টোবর, ২০১৯  

বাংলাদেশের জাহাজ এবার দক্ষিণ আমেরিকায়

প্রকাশিত:

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট॥

বাংলাদেশের জাহাজ নির্মাণ প্রতিষ্ঠান ওয়েস্টার্ন মেরিন শিপইয়ার্ডে নির্মিত জাহাজ রফতানি হলো দক্ষিণ আমেরিকার দেশ ইকুয়েডরে। প্রথমবারের মতোই জাহাজ রফতানি হলো ইকুয়েডরে।

বাংলাদেশে তৈরি ওই জাহাজটির নাম দেওয়া হয়েছে এমভি স্টেলা আটলান্টিক। সোমবার এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ইকুয়েডরের কাছে জাহাজটি হস্তান্তর করা হয়েছে।

ইকুয়েডরের রাষ্ট্রীয় জাহাজ প্রতিষ্ঠান ইকুয়েডোরিয়ান শিপিং ট্রান্সপোর্ট, ট্রান্সনেইভ জাহাজটির দায়িত্ব গ্রহণ করে। এটি ইকুয়েডর থেকে দক্ষিণ আমেরিকার গালাপাগোস দ্বীপপুঞ্জে পণ্য পরিবহন কাজে নিয়োজিত হবে।

ওয়েস্ট মেরিন শিপইয়ার্ড থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

‘এমভি স্টেলা আটলান্টিক’ ৮৮ দশমিক ৬ মিটার দীর্ঘ একটি টুইন ডেকার জাহাজ। নৌযানটি জার্মান ‘ক্লাস ডিএনভি-জিএল’-এর তত্ত্বাবধানে নির্মিত এবং পানামা পতাকাবাহী। জাহাজটিতে দুটি এবং প্রতিটিতে ৬০ টন পণ্য উত্তোলন ক্ষমতাসম্পন্ন ভারী ক্রেন রয়েছে।

সোমবার বন্দরন গরীতে জাহাজটি হস্তান্তর উপলক্ষে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার অ্যাডমিরাল এম নিজামউদ্দীন আহমেদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোর ভাইস চেয়ারম্যান শুভাশীষ বসু।

এ সময় অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন ইকুয়েডোরিয়ান নেভি কোম্পানির পরিচালক ক্যাপ্টেন এলিজান্ড্রো ভিলাসিস আগুইলার এবং ট্রান্সনেইডের ব্যবস্থাপক লুইস মিরা ব্রিটো।

ওয়েস্টার্ন মেরিন শিপইয়ার্ডের চেয়ারম্যান সায়ফুল ইসলাম বলেন, “ওয়েস্টার্ন মেরিন বিশ্বের বিভিন্ন অংশে জাহাজ রফতানির মাধ্যমে জাতীয় রফতানিতে বিশেষ ভূমিকা রাখছে। সমগ্র বিশ্বে জাহাজ এখন উচ্চ প্রযুক্তির পণ্য হিসেবে বিবেচিত। পৃথিবীর বিভিন্ন অংশে সফলভাবে জাহাজ রফতানির মাধ্যমে এ শিল্পে জাতি হিসেবে আমাদের দক্ষতা ও যোগ্যতা প্রমাণ করতে পেরেছে।”

প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাখাওয়াত হোসেন বলেন, “জাহাজ রফতানির মাধ্যমে আমরা প্রথমে ইউরোপে, পরে পূর্ব আফ্রিকা এবং এরপর প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে। বর্তমানে আমরা দক্ষিণ আমেরিকা পর্যন্ত হাত বাড়াতে পেরেছি।”

/এসআই/এফএইচ/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।