সকাল ১০:০৪ ; বুধবার ;  ১৩ নভেম্বর, ২০১৯  

নীলফামারী ৪০টি চর ও গ্রাম প্লাবিত

প্রকাশিত:

নীলফামারী প্রতিনিধি।।

নীলফামারীর ডালিয়া পয়েন্টে আবারও তিস্তা নদীতে বন্যা দেখা দিয়েছে। শুক্রবার সকাল সাড়ে ৬টা থেকে ওই পয়েন্টে তিস্তা নদীর বিপদসীমার (৫২দশমিক ৪০) ১৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে নীলফামারী ও লালমনিহাট জেলার প্রায় ৪০টি চর ও গ্রাম বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে।

এদিকে, ভারী বর্ষণ আর উজানের পাহাড়ী ঢলে তিস্তা ব্যারাজের ৪৪টি সুইসগেট খুলে দিয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোস্তাফিজুর রহমান ও ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র জানায়, ডালিয়া পয়েন্টে ২৪ ঘণ্টায় ৩৫ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হলেও উজানের ভারী বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে শুক্রবার সকালে তিস্তা ব্যারাজ পয়েন্টে বিপদসীমার ১৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

জেলার ডিমলা উপজেলার তিস্তা পাড়ের টেপাখড়িবাড়ী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম জানান, বৃহস্পতিবার গভীর রাত থেকে উজান থেকে ঢল নামতে থাকে। ওই ইউনিয়নের চড়খড়িবাড়ি, উত্তর খড়িবাড়ী, দক্ষিণ খড়িবাড়ী, পূর্ব খড়িবাড়ী, গ্রাম প্লাবিত হয়ে পাঁচ শতাধিক পরিবারের বাড়িতে তিস্তার পানি ঢুকে বন্যার সৃষ্টি হয়েছে। তিনি আরও বলেন, বৃহস্পতিবার রাতে রমজানের সেহরি রান্না করে খেতে পারেনি বন্যা কবলিত এলাকার মানুষজন। ঠিক সেহেরি খাওয়ার সময় বন্যার পানি এসে বাড়ি ঘর তলিয়ে দেয়।

পূর্বছাতনাই ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ খান বলেন, তিস্তা পাড়ের গ্রাম ও বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়েছে। এছাড়া প্রত্যেকটি ঘর বাড়িতে হাঁটু পানি জমে উঠেছে।

উল্লেখ্য, ১৩ জুন থেকে ১৫ জুন পর্যন্ত তিস্তা নদীর পানি বিপদসীমা ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছিল। বন্যা পরিস্থতি উন্নতি হওয়ার তিন দিন পর হঠাৎ তিস্তা পানি আবারও বিপদসীমার ১৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

/এমডিপি/এমএনএইচ/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।