ভোর ০৭:১৫ ; শনিবার ;  ১৯ অক্টোবর, ২০১৯  

ইলিশ সংরক্ষণে ট্রাস্ট ফান্ড গঠনের উদ্যোগ

প্রকাশিত:

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট।।

বিশ্বে সর্বোচ্চ মৎস্য উৎপাদনকারী দেশের তালিকায় বাংলাদেশ তৃতীয়। দেশের রফতানি আয়ে তৈরি পোশাকের পর মৎস খাতের অবস্থান। জিডিপিতে মৎস্য সম্পদের অবদান ৪ দশমিক ৩৭ শতাংশ।

ইলিশ সংরক্ষণ এবং উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে ইলিশ সংরক্ষণ ট্রাস্ট ফান্ড র্শীষক এক কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী মোহাম্মদ ছায়েদুল হক এ কথা বলেন। বুধার রাজধানীর ওয়েস্টিন হোটেলে এ কর্মশালা শুরু হয়।

কর্মশালাটি যৌথভাবে আয়োজন করেছে ইন্টারন্যাশনাল ইনস্টিটিউট ফর এনভায়রনমেন্ট অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (আইআইইডি), বাংলাদেশ সেন্টার ফর অ্যাডভান্স স্টাডিজ (বিসিএএস), বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (বিএইউ) এবং মৎস্য অধিদপ্তর।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন মৎস্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. সৈয়দ আরিফ আজাদ এর সভাপতিত্বে আইআইইডি, ইউকে-এর জ্যেষ্ঠ অর্থনীতিবিদ ড. ইছাম ইয়াসনি সাবেক সচিব ড. মিহির কান্তি মজুমদার, অরন্যক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক ড. ফরিদ উদ্দিন আহমেদ ও বিসিএএস-এর সিনিয়র ফেলো এবং মৎস্য অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক মোঃ লিয়াকত আলী

মন্ত্রী আরও বলেন, “বিশ্বে মোট উৎপাদনের ৬০ ভাগ ইলিশ বাংলাদেশে উৎপাদিত হয়। বিগত বছরগুলোতে জাটকা নিধন এবং মা ইলিশ আহরণের ফলে ইলিশ সংরক্ষণের প্রয়োজনীয়তা দেখা দিয়েছে।ইলিশ উৎপাদনের এ ধারা অব্যাহত রাখা এবং ইলিশ সংরক্ষণের জন্য ট্রাস্ট ফান্ড গঠনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।”
ইলিশ সম্পদের ব্যস্থাপনা, সংরক্ষণ এবং টেকসই উন্নয়নে এ ফান্ড গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে বলে মন্ত্রী আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

তিনি বলেন, জাটকা সংরক্ষণ প্রকল্পের আওতায় জানুয়ারি থেকে এপ্রিল পর্যন্ত জেলেদের প্রতিমাসে জনপ্রতি ৪০ কেজি করে চাল প্রদান এবং বিকল্প কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে আসছে। পাশাপাশি প্রজনন মৌসুমে অক্টোবর মাসে ১১ দিন মা ইলিশ আহরণ নিষদ্ধি করায় ইলিশ উৎপাদন বৃদ্ধি পাচ্ছে।”

/এসঅাই/এফএইচ/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।