সকাল ১০:২৪ ; বুধবার ;  ১৩ নভেম্বর, ২০১৯  

গাইবান্ধায় স্কুল পরিচালনা কমিটির সঙ্গে শিক্ষকদের সংঘর্ষ, আহত ৮

প্রকাশিত:

গাইবান্ধা প্রতিনিধি।।

গাইবান্ধার সাদুল্লাপুরে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্যদের সঙ্গে শিক্ষকদের সংঘর্ষের ঘটনায় ৮ জন আহত হয়েছে। এসময় বিদ্যালয়ের অফিসসহ কয়েকটি কক্ষ ভাঙচুর করা হয়। রবিবার দুপুরে উপজেলার ধাপেরহাট বিএমপি উচ্চ বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।

এদিকে, বিক্ষুদ্ধ শিক্ষার্থীরা ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার এবং রুটিন অনুযায়ী পরীক্ষা নেওয়ার দাবিতে রংপুর-ঢাকা মহাসড়কের এক ঘণ্টা সড়ক অবরোধ করে।

আহতরা হলেন, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম, সহকারী প্রধান শিক্ষক মাসুদ রানা, সহকারী শিক্ষক রিমেল প্রামাণিক, সাহাদৎ হোসেন, পরিচালনা কমিটির সভাপতি আফসার আলী, পরিচালনা কমিটির সদস্য রাশেদুল প্রামাণিক, ফারুকুল ও সবজেল আলী।

ধাপেরহাট পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক (এসআই) জালাল উদ্দিন জানান, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ এনে  সম্প্রতি বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি তাকে সাময়িক বরখাস্ত করেন। এ আদেশ আজ  রবিবার থেকে কার্যকর হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম প্রতিদিনের মতো রবিবার সকালে বিদ্যালয়ে আসেন। খবর পেয়ে পরিচালনা কমিটির সভাপতি আফসার আলী কমিটির অন্য সদস্যদের নিয়ে বিদ্যালয়ে উপস্থিত হন। পরিচালনা কমিটির সদস্যরা প্রধান শিক্ষককে দায়িত্ব ছেড়ে দিতে বললে শিক্ষকদের সঙ্গে তাদের কথাকাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে উভয়পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

তিনি আরও জানান, খবর পেয়ে পুলিশ বিদ্যালয়ে পৌঁছে পরিস্থিতি শান্ত করে। এছাড়া মহাসড়কে অবস্থান নেওয়া শিক্ষার্থীদের বুঝিয়ে পরীক্ষা গ্রহণের আশ্বাস দিলে তারা অবরোধ তুলে নেয়।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম জানান, সাময়িক বরখাস্তের বিষয়টি আমার জানা নেই। পরিচালনা কমিটির লোকজন বহিরাগত লোক এনে বিদ্যালয়ে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর ও শিক্ষকদের মারধর করে।

এ ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন বলেও জানিয়েছেন তিনি।  

পরিচালনা কমিটির সভাপতি আফসার আলী বহিরাগত নিয়ে হামলার অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, প্রধান শিক্ষককের অনিয়ম ও দুর্নীতির কারণে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। পরিচালনা কমিটির লোকজন বিদ্যালয়ে পৌঁছে প্রধান শিক্ষকের সঙ্গে বরখাস্তের বিষয় নিয়ে কথা বলতেই প্রধান শিক্ষকের নেতৃত্বে অন্য শিক্ষকরা তাদের ওপর হামলা করে।

সাদুল্লাপুর থানার ওসি ফরহাদ ইমরুল কায়েস জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। বিষয়টি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

/এমডিপি/এএইচ /

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।