রাত ০৫:৫১ ; রবিবার ;  ১৮ নভেম্বর, ২০১৮  

মোবাইল ফোনে ব্যয় বাড়ছে

প্রকাশিত:

সম্পাদিত:

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট॥

অর্থমন্ত্রী প্রস্তাবিত ২০১৫-১৬ অর্থবছরের বাজেটে মোবাইল সিম বা রিমের মাধ্যমে প্রদত্ত সেবায় ৫ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক আরোপের প্রস্তাব করেছেন। এর ফলে মোবাইলে কথা বলা ও ডাটা (ইন্টারনেট) ব্যবহারের ব্যয় বাড়বে।

এমনিতে মোবাইলফোনে কথা বললে বা ইন্টারনেট ব্যবহার করলে গ্রাহককে ১৫ শতাংশ মূল্য সংযোজন কর বা মূসক দিতে হয়। প্রস্তাবিত ৫ শতাংশ শুল্ক আরোপ হলে যারা মোবাইলে বেশি কথা বলবেন বা বেশি ইন্টারনেট ব্যবহার করবেন তাদের অতিরিক্ত খরচ দিতে হবে। যদিও এর আগে নির্দিষ্ট করে দেওয়া হবে একটানা কতক্ষণ কথা বলা যাবে বা কত টাকার (মেগা বা গিগাবাইট) ইন্টারনেট ব্যবহার করলে ৫ শতাংশ  সম্পূরক শুল্ক আরোপ হবে। সার্বিকভাবে এই ৫ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক আরোপ হলে মানুষের মোবাইল ফোন ব্যবহারের ব্যয় বাড়বে।

অন্যদিকে প্রস্তাবিত বাজেটে মোবাইলফোনের সিম ট্যাক্স কমানো হয়েছে। ৩০০ টাকার বদলে সিম ট্যাক্স করা হয়েছে ১০০ টাকা। প্রতিস্থাপিত সিমকার্ডের ক্ষেত্রে ১০০ টাকা শুল্ক ধার্য আছে। মোবাইলফোন খাতের উত্তরোত্তর উন্নয়নের স্বার্থে এবং মোবাইলফোনের মাধ্যমে তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার সহজলভ্য করার লক্ষে তথা এ খাতের সার্বিক সুষম প্রবৃদ্ধির জন্য ২০১৫-২০১৬ অর্থবছরের সিমকার্ড ইস্যু এবং প্রতিস্থাপতি সিমকার্ড উভয় ক্ষেত্রে ১০০ টাকা শুল্ক-কর ধার্য করার প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী।

এ দিকে মোবাইলফোন অপারেটর রবি এক বাজেট প্রতিক্রিয়ায় বলেছে, সিম কর কমানোর সিদ্ধান্ত বাংলাদেশে মোবাইল সংযোগের বিস্তার ঘটানোর ক্ষেত্রে একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ। যদিও রবি আশা করেছিল সিম কর পুরোপুরি মওকুফ করে দেওয়া হবে। তবে সিম কর কমানোর সিদ্ধান্ত নিশ্চিতভাবেই সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নের উদ্যোগ এবং পদক্ষেপকে তরান্বিত করবে।

তবে আমরা উদ্বিগ্ন যে, মোবাইল সেবার ওপর ৫ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক আরোপ আমাদের গ্রাহকদের জন্যে বাড়তি চাপ হিসাবে দেখা দেবে। এর ফলে এই খাতের সামগ্রিক রাজস্ব কমে আসার আশঙ্কাও রয়েছে। আমরা সরকারকে কর্পোরেট ট্যাক্সের বিষয়টিও পুনর্বিবেচনার অনুরোধ করছি। কারণ কর্পোরেট ট্যাক্স কমালে নিশ্চিতভাবেই এই খাতে আরও বেশি প্রত্যক্ষ দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ উৎসাহিত হবে।

 

/এইচএএইচ/এফএ

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।